প্যাসিভ ইনকাম কি? সেরা ৫টি প্যাসিভ ইনকাম আইডিয়া

আপনি শুয়ে আছেন, বসে আছেন আসলে বা কিছুই করছেন না কিন্তু আপনার ওয়ালেট ঠিকই ভারি হচ্ছে। এক কথায় কিছু না করে আপনাআপনি টাকা আয়ের পদ্ধতিকে বলা হয় প্যাসিভ ইনকাম। আমাদের চারপাশে প্যাসিভ ইনকামের বিভিন্ন উপায় আছে।

এর মধ্যে সেরা কিছু প্যাসিভ ইনকাম আইডিয়া রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে ঘরে বসেই টাকা আয় করা যাবে। এই ব্লগে আমরা সেরা ৫টি প্যাসিভ ইনকাম আইডিয়া নিয়ে কথা বলবো।

প্যাসিভ ইনকাম কি? What is passive income in Bangla?

কাজ না করেও টাকা আয়ের যে ধারণাটি আছে সেটি হলো প্যাসিভ ইনকাম। আপনি অফিসে জব করলে যেমন আপনাকে ৬/৮ ঘণ্টা অফিসে সময় দিতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার স্যালারি হচ্ছে একটিভ ইনকাম। কারণ এখানে আপনাকে মাসিক ভিত্তিতে দৈনিক নির্দিষ্ট একটা সময় একটিভ থাকতে হবে। কাজ করলে তবেই আপনার স্যালারি পাবেন।

কিন্তু প্যাসিভ ইনকামের আইডিয়াটি এর বিপরীত। অর্থাৎ প্যাসিভ ইনকামের ক্ষেত্রে আপনাকে প্রতিদিন সময় দিতে হবে না। আপনার ইনকাম সোর্স থেকে আপনা আপনি টাকা আয় হবে। প্যাসিভ ইনকাম মানে যে অনলাইন ইনকাম তাইই নয়। অফলাইন কিংবা বাস্তব জীবনেও প্যাসিভ ইনকামের বিভিন্ন পদ্ধতি আছে।

প্যাসিভ ইনকাম কাদের জন্য?

প্যাসিভ ইনকাম আসলে নির্দিষ্ট কোনো লিঙ্গ বা বয়সের মধ্যে আবদ্ধ নয়। যে কেউ প্যাসিভ ইনকাম করতে পারবে। তবে ছাত্র অবস্থায় কিছু টাকা আয়ের জন্য প্যাসিভ ইনকাম খুবই কার্যকরী। কারণ এতে ফুলটাইম সময় দিতে হবে না। ফলে পড়াশোনার প্রতি চাপ বা ক্ষতি হবার সম্ভাবনা নেই। এছাড়া যারা জব করেন তারাও প্যাসিভ ইনকামের মাধ্যমে জবের স্যালারির পাশাপশি কিছু টাকা আয় করতে পারবেন।

সেরা ৫টি প্যাসিভ ইনকামের আইডিয়া

শুরুতে বলেছি প্যাসিভ ইনকামের হাজারটা উপায় রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক অবস্থান অনুযায়ী সব আইডিয়া কাজে আসবে না। তাই বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের প্রেক্ষিতে ৫টি সেরা প্যাসিভ ইনকামের উপায় তুলে ধরা হলো —

১. ব্লগিং করা

আপনি কোনোবিষয়ে ভালো জ্ঞান রাখেন? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়। তাহলে তো লিখালিখি করার মাধ্যমেও টাকা আয় করা সম্ভব। ওয়েবসাইটে কোনো বিষয়ের উপর লিখালিখি করাকে বলা হয় ব্লগিং। আর যে ওয়েবসাইটে লেখা হয় তাকে বলে ব্লগ। যেমন: বঙ্গ উইকি একটি ব্লগ।

ব্লগ থেকে কয়েক উপায়ে টাকা আয় করা যায়। যেমন: বিজ্ঞাপন দেখিয়ে, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে, স্পন্সর করে। আমাদের দেশে ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয়ের প্রবণতা সবথেকে বেশি। এজন্য ব্লগে গুগল এডসেন্স থাকতে হয়।

আরোও দেখুন: ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করার উপায়

আবার পাশাপাশি বৃদ্ধি পাচ্ছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এক কথায় অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং মানে আপনার রেফার করা লিংক থেকে কেউ কিছু কিনলে আপনাকে কমিশন দেওয়া। ব্লগ পোস্টে অ্যাফিলিয়েট লিংক যুক্ত করতে হয়।

সাপ্তাহিক ও মাসিক ভিত্তিতে ব্লগে কনটেন্ট দিলেই যথেষ্ট। এতে করে প্রতিদিন ব্লগে সময় না দিলেও টাকা আয় হচ্ছে।

২. ভিডিও বানানো (ফেসবুক, ইউটিউব)

এই ব্যাপারটাও ব্লগ লিখার মতো। আপনি যদি কোনো বিষয়ে এক্সপার্ট হয়ে থাকুন। তাহলে সেটার উপর ভিডিও তৈরি করে ফেসবুক বা ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন। নিয়মিত ভিডিও আপলোড করলে ভালো ফলাফল পাওয়া সম্ভব। ভিডিও মনিটাইজ করে মূলত টাকা আয় হয়।

ইউটিউবের জন্য মনিটাইজেশন পেতে ইউটিউব চ্যানেলে সর্বনিন্ম ১০০০ সাবস্ক্রাইবার। গত ১২ মাসের মধ্যে ৪০০০ ঘন্টা ওয়ার্চ টাইম আপনার চ্যানেলের সকল ভিডিও গুলো থেকে হতে হবে। তারপর ইউটিউব নীতিমালা ঠিক হলে, গুগল এডসেন্স এপ্রুভ হবে।

অন্যদিকে ফেসবুকে আয়ের ক্ষেত্রে আরো ভালো সুযোগ রয়েছে। ইনস্ট্রিম এডস, শর্ট ভিডিও (reels) থেকে টাকা আয়ের সুযোগ। ফেসবুক বা ইউটিউবের জন্য ভিডিও প্রতিদিন তৈরি করতে হবে না। অনেকগুলো ভিডিও বানানোর পর সেখান থেকেই রেভিনিউ আসবে।

জেনে নিন: ফেসবুক থেকে আয় ২০২৩: ফেইসবুক থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

৩. কোর্স তৈরি করা

আপনি যখন কোনো বিষয়ে দক্ষ তাহলে সেটা ফ্রি শেখাবেন কেনো? এজন্য আপনি কোর্স তৈরি করতে পারেন। আপনার কোর্স বিভিন্ন ফরম্যাটে হতে পারে। হতে পারে ভিডিও কোর্স, পডকাস্ট কোর্স কিংবা ইবুক কোর্স।

ভিডিও কোর্সের সবথেকে বড় সুযোগটা কাজে লাগাতে পারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এডমিশনের আগে বিভিন্ন ক্লাসের ভিডিও রেকর্ড করে সেগুলো কোর্স আকারে বের করতে পারে। একবার ভিডিও কোর্স তৈরি করলে সেটা দিয়ে কয়েক সিজন পর্যন্ত চালিয়ে দেয়া যাবে। শুধুমাত্র সময় অনুযায়ী আপডেট করে নিলেই হবে।

কোর্স যদি ইবুক ফরম্যাটে হয় তাহলে তো লাইফটাইম টাকা আয়ের সুযোগ আছে। ইবুক তৈরি করে সেটা নিজে বিক্রি বা অ্যামাজন কিন্ডলের মতো প্লাটফর্মে দিয়ে প্যাসিভ আয়ের সুযোগ রয়েছে।

৪. ছবি বা ভিডিও বিক্রি করা

আপনি কি ফটোগ্রাফার? ছবি তুলতে পছন্দ করেন? ডিজিটাল আর্ট করতে ভালোবাসেন? তাহলে বড় একটা সুযোগ তো আপনার হাতেই!

মানুষের কাছে জীবনটা তখনই সুন্দর হয়। যখন মানুষ নিজের নেশাকে পেশা বানাতে পারে। অনলাইনে ছবি বিক্রির বিভিন্ন স্টক ইমেজ প্ল্যাটফর্ম আছে। সেখানে আপনার ছবি আপলোড করে টাকা আয়ের সুযোগ রয়েছে।

আপনার ছবি যদি তাদের নীতিমালা অনুযায়ী হয় তাহলে ছবি বিক্রির টাকা পাবেন। এছাড়া ছবি ডাউনলোড কিংবা স্বত্ব কেনার একটা অংশ আপনি পাবেন। যেসব ওয়েবসাইটে ছবি বিক্রি করে আয় করা যায় —

  • Shutterstock
  • iStock
  • Alamy
  • Dreamstime
  • Adobe
  • Getty Images
  • Etsy
  • 500px
  • 123RF

ছবি বিক্রির পাশাপাশি স্টক ফুটেজ বিক্রি করেও টাকা আয় করা যায়। এই স্টক ফুটেজের ভিডিওগুলো খুব শর্ট ভিডিও হয়। তাই এতে বেশি কষ্ট করতে হবে না। একবার ভিডিও বা ছবি তুলে সেটা এসব প্লাটফর্মে আপলোড দিয়েই ঘরে বসে টাকা আয় করা সম্ভব।

৫. ইনভেস্ট

ইনভেস্ট একটি ঝুঁকিপূর্ন ও জটিল বিষয়। তবে ভালো জ্ঞান নিয়ে ইনভেস্ট করল অল্প সময়ের মধ্যেই লাভবান হওয়া সম্ভব। আপনার মূলধন ভালো ইনভেস্ট করতে পারেন শেয়ার মার্কেটে।

যাদের মূলধন কিছুটা কম তারা ইনভেস্ট করতে পারেন উদীয়মান স্টার্টআপগুলোতে। ইনভেস্ট করার আগে জেনে নিন স্টার্টআপের সম্ভাবনা, মার্কেট ভ্যালু। স্টার্টআপ ঠিকমতো দাড়িয়ে গেলে আপনার জন্য সুখবর। ইনভেস্টে আপনার তেমন কোনো পরিশ্রম নেই।

আরোও দেখুন: ফুড ডেলিভারি ব্যবসা – অল্প পুঁজিতেই বেশি লাভ!

প্যাসিভ ইনকাম হালাল নাকি হারাম?

এখন অনেকেই বলতে পারেন প্যাসিভ ইনকাম হালাল নাকি হারাম। কারণ এখানে কাজে একটিভ না থেকেও টাকা আয় হয়। প্যাসিভ ইনকাম হালাল নাকি হারাম এই প্রশ্নটা আসতেই পারে।

ইনভেস্ট ব্যতীত বাকিগুলোর ক্ষেত্রে টাকা হালাল হওয়ার ১০০% পসিবিলিটি আছে। যদি না আপনার কনটেন্ট খারাপ হয়। আর ইনভেস্ট করার ক্ষেত্রে জেনে নিতে হবে, আপনার টাকা কোন কোন খাতে ব্যয় করা হচ্ছে। তাহলে প্যাসিভ ইনকামও হালাল রাখা সম্ভব।

পরিশেষে

এই ছিলো মূলত সত্যিকারে ঘরে বসে টাকা আয় নিয়ে আলোচনা। এগুলো ছাড়াও প্যাসিভ ইনকামের হাজার ধরনের আইডিয়া রয়েছে। তবে উপরের প্যাসিভ ইনকামের আইডিয়াগুলো সবথেকে বেশি কার্যকর।

নিজের কর্মব্যস্ত জীবনকে বাধাগ্রস্থ না করে খুব সহজেই এভাবে টাকা আয় করতে পারেন। সারা পৃথিবীতেই প্যাসিভ ইনকাম করার প্রবনতা বাড়ছে। আপনিও সবকিছু গুছিয়ে শুরু করে দিন। এই কনটেন্ট সম্পর্কিত কোনো মতামত, প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই জানিয়ে দিন।

শেয়ার করুন!
Avatar photo
নুপুর রহমান

নুপুর রহমান বঙ্গ উইকির জুনিয়র গ্রাফিক্স ডিজাইনার, ব্লগ রাইটার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *